ArabicBengaliEnglishHindi

ছোটগল্প : অসমাপ্ত আলাপন


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২, ৩:৫৩ অপরাহ্ণ / ২৬
ছোটগল্প :   অসমাপ্ত আলাপন

প্রণব মন্ডল

অনিন্দ্য আর শর্মিলার বহু দিন পর দেখা। লেখক সারথির প্রকাশনা উৎসব আজ। তাই দুজনে এই অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে আসলো শিল্পকলা একাডেমীতে । অনিন্দ্য কে দূর থেকে দেখেই শর্মিলা চিনে ফেলল।ধীর পায়ে এসে শর্মিলার ঠিক পাশের চেয়ারে বসলো অনিন্দ্য ।
চেয়ারে বসে বেশ চমকে গেল অনিন্দ্য ।এ কাকে দেখছে সে। প্রিয় মুখটা আহা কতকাল পর দেখলাম ।মনটা বৃষ্টির ফোঁটায় যেন শান্ত স্নিগ্ধ হয়ে গেল।ভালোবাসার আলতো আদরমাখা কন্ঠে বলল শর্মি কেমন আছ? ভাবিনি আজ তোমাকে এখানে দেখব।জানো, ঈশ্বরকে কতবার বলেছি তোমাকে যেন একটিবার দেখি মৃত্যুর আগে।
শর্মিলা তাঁর স্বভাবসুলভ অভিমান মাখা স্বরে বলল আমি আছি যেমনটি রেখেছ তুমি । আর মরার কথা কেন বললে ? আর কখনো এমন করে বলবে না।
অনুষ্ঠান শুরু হতে এখনো খানিকটা দেরি।হলরুমেও এখন এত লোকজন দেখা যাচ্ছে না। বরাবরের মতো টাইম মোতাবেক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকলো অনিন্দ্য শর্মি দুজনেই।বাঙালির টাইম বলে কথা। কোনো অনুষ্ঠান ঠিকমতো শুরু করতে পারে না। তাই দুজনে কিছু টা সময় পেলো নিজেদের মধ্যে কথা বলার ।
এবার নীরবতা ভেঙে শর্মিলা বলল ।কেমন চলছে তোমার কাজ তোমার সংসার ? কাজ চলছে কাজের গতিতে আর আমার সংসার? সে তো কবিতা আর গল্পের খেয়ালে বন্দী ।  আমার কথা ছাড়ো তোমার কথা বলো
এই ফাঁকে অনিন্দ্য খুব যত্ন করে শর্মিলার দিকে থাকালো।এই মাঝবয়সেও কি অপরূপা লাগছে। চোখে কাজল টা শর্মির টানা টানা চোখে বেশ মায়াময় লাগে। কপালে টিপ, দুগাছি কাঁচের চুড়ি,গলায় সিম্পল একটি মালা ,কানে ছোট্ট একটি টপ। একটু ও পরিবর্তন নেই শর্মির সাজগোজে।শাড়ির কালারটা যেন বেশিই মানিয়েছে আজ তাঁকে ।হালকা লেমন কালার ।একেবারে পরীর মতো লাগছে দেখতে।
কিছুক্ষণ দুজনে চুপচাপ ।আস্তে আস্তে লোকজন ও আসতে শুরু করেছে। অনিন্দ্যই নীরবতা ভেঙে বলল তোমার কথা তো বললে না। কেমন আছ নিজের অফিস ,সংসার ,লেখালেখি নিয়ে? সে কথা অন্য একদিন বলব ।খোঁজ তো রাখোনি এতদিন? তবে আজ কেন জানতে চাইছ?
অনিন্দ্য নিজের অপরাধবোধে নীল হয়ে গেল ।কষ্ট হলো শর্মিলার জন্য ।তাই তো কেন খোঁজ রাখেনি এতদিন ?
বাস্তবতার কুঠারাঘাতে কেমন করে যেন জীবনের গতি বদলে যায় ।আমাদের চেনা জগত অচেনা হয়ে যায় নিমিষে। আহা জীবন আহারে জীবন!!!
এর মধ্যে অনুষ্ঠান শুরু হয় তাঁদের মঞ্চে ওঠার ডাক পড়ে।
দুজনে চুপচাপ গিয়ে মঞ্চে বসে।
নীরবতা যেন কত কথা বলে যাচ্ছে দুজনের মন জুড়ে  ।