ArabicBengaliEnglishHindi

স্ত্রীকে গলা  কেটে ও পুড়িয়ে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ জবানবন্ধি স্বামীর


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৬, ২০২২, ১১:৪৩ অপরাহ্ণ / ২৪
স্ত্রীকে গলা  কেটে ও পুড়িয়ে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ জবানবন্ধি স্বামীর
নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ

নড়াইল সদর উপজেলার সড়াতলা গ্রামে স্ত্রীকে গলা কেটে ও পুড়িয়ে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন নিহত আছিয়া বেগমের স্বামী রনি শেখ (২৪) ও তার বন্ধ আব্বাস ফকির (২২)।
শনিবার রাত ৮টার দিকে নড়াইলের আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হেলাল উদ্দিনের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।
এর আগে হত্যাকাণ্ডের ১৫ ঘণ্টার মধ্যে গত শনিবার ভোর রাতে আছিয়ার স্বামী রনি শেখকে কালিয়া থেকে এবং রনির প্রধান সহযোগী তার বন্ধু একই গ্রামের জামির ফকিরের ছেলে আব্বাসকে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
এ ছাড়া ঘটনার পর রনির বাবা মো. লিটু শেখ (৫৫) এবং তার দুই ভাই ইমরান শেখ (২৮) ও রুবেল শেখকে (২৬) গ্রেপ্তার করা হয়।
আছিয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার মা রেবেকা বেগম বাদী হয়ে ৮ জনকে আসামি করে গত ৫ নভেম্বর নড়াইল সদর থানায় মামলা করেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ওবায়দুর রহমান জানান, আসামি রনি ও আব্বাস আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
প্রসঙ্গত সাড়ে তিন বছর আগে সড়াতলা গ্রামের রনি শেখের সঙ্গে একই গ্রামের এখলাছ শিকদারের মেয়ে আছিয়া বেগমের সঙ্গে বিয়ে হয়। তাদের আড়াই বছরের এক ছেলে রয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, রনির অন্য মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক থাকার কারণে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ ছিল। গত শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে রনিদের বসতঘরের জানালা দিয়ে আগুন দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন এসে আগুন নেভান। এরপর দেখা যায় বিছানায় আছিয়ার গলাকাটা ও পুড়ে যাওয়া মরদেহ। আগুনে বিছানার চাদর, তোশক, কাঁথা ও আছিয়ার গায়ের কাপড় পুড়ে যায়।
নড়াইল জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোসা. সাদিরা খাতুন বলেন, ‘পূর্বপরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে থাকা আছিয়ার স্বামীসহ মামলার পাঁচ আসামিকে ঘটনার পনেরো ঘণ্টার মধ্যে নড়াইল জেলা পুলিশ গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে।
আসামিদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
%d bloggers like this: