ArabicBengaliEnglishHindi

রমজান পর্যন্ত খাদ্যসংকট হবে না: মন্ত্রিপরিষদ সচিব


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১৩, ২০২২, ৬:৫১ অপরাহ্ণ / ২০
রমজান পর্যন্ত খাদ্যসংকট হবে না: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:-   আগামী রমজান মাস পর্যন্ত দেশে কোনো ধরনের খাদ্যসংকট হবে না বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেছেন, খাদ্যের মজুত আগামী জুন পর্যন্ত যে প্রক্ষেপণ দেখানো যাবে, তাতে সব রকম কাজ করেও মজুতে কোনো ঘাটতি হবে না। দেশে বর্তমানে ১৬ লাখ টনেরও বেশি খাদ্য মজুত রয়ে গেছে।

মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) সচিব কমিটির বৈঠক শেষে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

দেশের খাদ্য পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক অবস্থায় রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা একটা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে রয়েছি। আর ওএমএসসহ যেসব খাদ্য সহায়তা করা হচ্ছে, সেগুলোও চলবে। অর্থাৎ কম দামে খাদ্য সহায়তাগুলো বন্ধ হচ্ছে না।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, দেশে খাদ্যের কোনোই অসুবিধা হবে না। আগামী রমজান পর্যন্ত আমাদের কোনো খাদ্য সংকট হবে না। বিশেষত কৃষি সচিব এ নিয়ে গত ছয় মাস ধরে সমন্বয় করছেন। তাতে এই বোরো মৌসুম শেষ হয়ে গেলে আগামী মে মাস পর্যন্ত খাদ্য উদ্বৃদ্ধ থাকবে। বর্তমানে যে খাদ্য মজুত আছে, সেটা ছাড়াও এবার আমনের ফলনও ভালো হয়েছে। খরা দীর্ঘায়িত হওয়ায় সুবিধা হচ্ছে যে নিম্নাঞ্চলেও আমন চাষ করা গেছে। সূর্যের আলো বেশি থাকায় সালোকসংশ্লেষণ ভালো থাকায় ফসল ভালো হয়েছে। ধানে খুব একটা চিটা দেখিনি।

গমের সংকট নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, গম উৎপাদন আমাদের দেশের পরিবেশগত না। এটা হলো সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ১২টি দেশের। এসব দেশে যে গম উৎপাদন হয়, তা রিপ্লেস করা কঠিন। আমরা প্রায় ৫৮-৫৯ লাখ মেট্রিকটন ভুট্টা উৎপাদন করেছি। এটার খাদ্যমূল্য আরও বেশি। আর গম আমদানিরও চেষ্টা চলছে। খাদ্যসচিব গম আনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত ২৭ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সচিবদের যে বৈঠক হয় আজ তারই একটি ফলোআপ বৈঠক হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আমাদের সব সচিবদের কাছ থেকে ব্যয় সংকোচন- যেমন এন্টারটেইনমেন্ট, বিদ্যুৎ বা পেট্রোলে ব্যয় কতটা কমলো, তার একটি পর্যালোচনা নিয়েছি।

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, গত জুন মাস থেকে এ পর্যন্ত বিদ্যুতে প্রায় ৪৮ শতাংশ পর্যন্ত ব্যয় কমানো সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তো প্রায় ৬০ শতাংশের বেশি কমে এসেছে। আর জ্বালানি খাতেও ৪০ শতাংশ ব্যয় কমেছে। বৈঠকে তা তুলে ধরা হয়েছে। সবাই তা চর্চা করছেন। এটিই আমাদের কাছে সবচেয়ে আদর্শ বলে মনে হয়েছে।

তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে যে আর্থিক মন্দা চলছে এরই পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়কে প্রকল্পের এ, বি ক্যাটাগরি করে দেওয়া হয়েছে। সেসব ক্যাটাগরি কঠোরভাবে মেনে চলতে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বৈদেশিক ঋণকে সঠিকভাবে কাজে লাগতে অনুরোধ করা হয়েছে। এতে বৈদেশিক মুদ্রার মজুতের জন্য ভালো হবে। যখন আমরা বৈদেশিক ঋণ নিই, তখন একটি বার্ষিক প্রজেকশন (প্রক্ষেপণ) দেখাতে হয়। যেমন- এই প্রকল্প বাস্তবায়নে আমাদের ৪০০ মিলিয়ন ডলার লাগবে। এখন আমরা যখন ৪০০ মিলিয়নের রিকুইজেশন দিয়ে দিই, তা খরচ করতে না পারলেও আমাদের ব্যবস্থাপনা খরচ কম আসে না। আমরা যদি ২০০ মিলিয়ন ডলারও খরচ করি, তখন ব্যবস্থাপনা খরচ দিতে হয় ৪০০ মিলিয়নেরই। যে কারণে এ দিকটিতে বেশি নজর দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এখনো চলতি অর্থবছরের ছয় মাস হয়নি, কাজেই আগামী ছয় মাসের মধ্যে যেন এটা বাস্তবায়ন করতে পারি। এতে দুটো কাজ হবে। প্রথমত, বৈদেশিক মুদ্রার মজুতের একটা সমাধান হবে। খরচও বেশি হবে না।

সর্বোচ্চ সাশ্রয় কোন মন্ত্রণালয় করেছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় বেশি সাশ্রয় করেছে। যা ৬০ শতাংশ। এরপর বিনোদন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সচিবদের বৈঠকে ২৪ দফা নির্দেশনায় যে কোনো সংকটের জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। সেই সংকটটা কী ধরনের জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এটা কোনো রাজনৈতিক বিষয় নয়। কোনো কারণে এক-দুমাস সাপ্লাই চেইন বন্ধ হয়ে গেলে, সেটার জন্য প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে।

%d bloggers like this: