ArabicBengaliEnglishHindi

যা থাকছে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে


প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১৮, ২০২৩, ৬:৪৯ অপরাহ্ণ / ১৭
যা থাকছে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে

সেলিম রানা স্টাফ রিপোর্টার :- ঢাকা: মাঠ প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা হলেন জেলা প্রশাসক (ডিসি)। প্রতি বছর ডিসি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে পারেন ডিসিরা। প্রধানমন্ত্রীও ডিসিদের নানা দিক-নির্দেশনা দেন।
আগামী ২৪-২৬ জানুয়ারি জেলা প্রশাসক সম্মেলনকে সামনে রেখে প্রাক-প্রস্তুতি নিচ্ছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উদ্বোধনের পর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সম্পর্কিত কার্য-অধিবেশনগুলো অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়াও, মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সম্পর্কিত কার্য-অধিবেশনে আইজিপি, সশস্ত্র বাহিনী প্রধানদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে ডিসিদের।

রাষ্ট্রপতি, জাতীয় সংসদের স্পিকার এবং প্রধান বিচারপতির সঙ্গেও কার্য-অধিবেশনে অংশ নেবে ডিসিরা। কার্য-অধিবেশনগুলোয় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং উপ-মন্ত্রী ও সচিবেরা উপস্থিত থাকেন। সরকারের নীতি-কৌশল বাস্তবায়নে তারা বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দেন।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রস্তুত করা নির্দেশিকায় দেখা গেছে, ২৩ জানুয়ারি বেলা ১১টা থেকে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোভিড-১৯ টেস্ট করানো হবে। বেলা ২টা থেকে একই স্থানে রেজিস্ট্রেশন এবং সাড়ে ৩টায় বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের উদ্দেশ্যে ব্রিফিং করা হবে। বিকেল ৩টায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের আয়োজনে প্রেস ব্রিফিং করার কথা রয়েছে।

২৪ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শাপলা হলে সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিসি সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের স্বাগত বক্তব্য, মাঠ প্রশাসনের উদ্ভাবন, সেবা ও উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের ভিডিও চিত্র প্রদর্শন, জেলা প্রশাসকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য, বিভাগীয় কমিশনারদের পক্ষ থেকে বক্তব্য, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য এবং প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ ও সম্মেলন উদ্বোধনের সূচি ঠিক করা হয়েছে।

এরপর সোয়া ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত করবী হলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেবেন জেলা প্রশাসকরা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মাঠ প্রশাসন সম্পৃক্ত বিষয়াদি নিয়ে মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠত হবে। এরপর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ফটো সেশনে অংশ নেবেন তারা। করবী হলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও আওতাধীন সংস্থাসমূহের ওপর কার্য অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম দিবসে চারটি কার্য অধিবেশন ছাড়াও সন্ধ্যায় বিআইসিসিতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নৈশভোজ অনুষ্ঠিত হবে।

২৫ জানুয়ারি দ্বিতীয় দিবসে ৫টি অধিবেশন শেষে করোনা টেস্ট করা হবে। এরপর আরও ২টি কার্য অধিবেশনের পর বিকেল সাড়ে ৪টায় সুপ্রিম কোর্ট ভবনে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ এবং নির্দেশনা দেবেন প্রধান বিচারপতি। একই দিন সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় সংসদ ভবনে স্পিকারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ এবং মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হবে। এরপর জাতীয় সংসদ ভবনে স্পিকারের সঙ্গে নৈশভোজে অংশ নেবেন জেলা প্রশাসকরা।

২৬ জানুয়ারি তৃতীয় ও শেষ দিবসে ৮টি কার্য অধিবেশনের পর সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ এবং নির্দেশনা দেবেন রাষ্ট্রপতি।

এরপর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সমাপনী অধিবেশন শেষে রাত ৮টায় মন্ত্রিপরিষদ সচিবের বক্তব্য, নৈশভোজ এবং সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণা করা হবে।

এবারের ডিসি সম্মেলনে মোট অনুষ্ঠান, অধিবেশন বা কার্য-অধিবেশনের সংখ্যা ২৬টি।

%d bloggers like this: