ArabicBengaliEnglishHindi

‘বিএনপি-জামায়াতকে আর ছাড় নয়, সময় এখন প্রতিহতের’


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১০, ২০২২, ৬:৪৮ অপরাহ্ণ / ৩৬
‘বিএনপি-জামায়াতকে আর ছাড় নয়, সময় এখন প্রতিহতের’

জেলা প্রতিনিধি:- ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) ও ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী বলেছেন, অতীতে বিএনপি-জামায়াত অনেক সন্ত্রাসী কার্যক্রম করেছে, আর করতে দেওয়া হবে না। ১৪ বছর পর্যন্ত আওয়ামী লীগ তাদের স্বাধীনতা দিয়েছে আর নয়।

প্রত্যেকটি পাড়া-মহল্লায় কঠিনভাবে প্রতিহত করতে হবে। যারা বাড়াবাড়ি করবে তাদের ফেনীতে থাকার দরকার নাই। আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য কাজ করছি। নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের কঠিন হাতে দমন করতে হবে।

সারাদেশে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে শনিবার (৯ ডিসেম্বর) বিকেলে ফেনী পৌর আওয়ামী লীগের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় নিজাম হাজারী আরও বলেন, সরকারের নমনীয়তাকে বিএনপি-জামায়াত চক্র দুর্বলতা ভেবেছিল। তারা চেয়েছিল ঢাকার নয়াপল্টনে সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে ঢাকা শহরকে অচল করে দেবে। তাদের সেই ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে। সরকারের কঠোর সিন্ধান্তে তারা সেখান থেকে সেরে যেতে বাধ্য হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, তাদের আর ছাড় নয়, যারাই নৈরাজ্য তৈরি করতে চাইবে তাদের বিরুদ্ধে কঠিন-কঠোর ব্যবস্থা নেবো।

নিজাম হাজারী আরও বলেন, আওয়ামী লীগে বাটপারদের জায়গা নেই। অন্য দল থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার দরকার নেই। আমাদের ভাড়াটিয়া লোক দরকার নেই। ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসের নির্বাচনে শেখ হাসিনাকে আবার নির্বাচিত করার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবো। ফেনীর তিনটি আসন শেখ হাসিনাকে উপহার দেব।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন বিএনপির সাথে সখ্যতা করে যারা চলে দলে তাদের জায়গা নেই।

ফেনী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী পৌরমেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজীর সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট হাফেজ আহম্মদ, ফেনী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শুসেন চন্দ্র শীল।

সমাবেশের আগে মিছিলটি ফেনী পৌর প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান, প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় পৌর প্রাঙ্গণে এসে সমাবেশে মিলিত হয়। মিছিল ও সমাবেশে ফেনী পৌরসভার সব ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক। ফেনী সদর উপজেলার সব ইউনিয়নের সভাপতি সম্পাদকসহ কয়েক হাজার নেতাকর্মী অংশ নেয়।

%d bloggers like this: