ArabicBengaliEnglishHindi

বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড গড়ে ৪০০ ছাড়ানো সংগ্রহ ভারতের


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১০, ২০২২, ৫:৩৫ অপরাহ্ণ / ৩০
বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড গড়ে ৪০০ ছাড়ানো সংগ্রহ ভারতের

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:-  বাউন্ডারি, ওভার বাউন্ডারি; কাভার ড্রাইভ, আপার কাট, এক হাতে সীমানা পাড়, সবই করলেন ভারতীয় ব্যাটাররা। ভিরাট কোহলি সেঞ্চুরি হাঁকালেন, ঈষাণ কিষাণ করলেন ডাবল সেঞ্চুরি। তারা লিখলেন ইতিহাসও। তাতে বাংলাদেশের সামনে রেকর্ড সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে ভারত।

শনিবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শেষটিতে বাংলাদেশের সামনে ৪১০ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ভারত। প্রথম দল হিসেবে ভিরাট কোহলিরা বাংলাদেশের বিপক্ষে ছাড়িয়ে গেছেন চারশ রানের সংগ্রহ। এর আগে ইংল্যান্ডের ৩৯১ রান ছিল টাইগারদের সবচেয়ে বড় সংগ্রহ।

আগের দুই ম্যাচ হেরেই সিরিজ খুঁইয়ে ফেলা ভারতের তৃতীয় ওয়ানডেতে হারানোর তেমন কিছু ছিল না। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে ধাক্কাও খেয়েছিল তারা। পঞ্চম ওভারেই শেখর ধাওয়ানকে আউট করেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

প্রথম বলে রাউন্ড দ্য উইকেট থেকে করা মিরাজের বলে ডিফেন্ড করতে চেয়েছিলেন শেখর ধাওয়ান। কিন্তু বল তার প্যাডে লাগে। শুরুতে অবশ্য আম্পায়ারের কাছে মনে হয়েছিল ব্যাটে লেগেছে বল, তিনি দেন নট আউট। পরে রিভিউ নিয়ে সফল হয়েছে বাংলাদেশ।

উইকেট নেওয়ার স্বস্তির কিছুক্ষণ পরই সঙ্গী হয় হতাশাও। শর্ট মিডউইকেট ভিরাট কোহলির সহজ ক্যাচ ছেড়ে দেন লিটন। পরের বলেই বাউন্ডারি হাঁকান কোহলি। এরপর রান তোলার গতি ঠিক রেখে দুর্দান্ত সব শট খেলতে থাকেন ঈষাণ কিষাণ। তাকে যোগ্যভাবেই সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছিলেন কোহলি।

৬৮তম বলে এসে প্রথম হাফ সেঞ্চুরি পান ঈষাণ। এরপরও খেলছিলেন ভালোভাবেই। ৮৪ রানে এসে তার একটি ক্যাচ ধরার দারুণ প্রচেষ্টা ছিল সাকিব আল হাসানের। ডিপ মিডউইকেট থেকে দৌড়ে লং অনের দিকে অনেকটা দৌড়ে আসেন তিনি। কিন্তু বল হাতে রাখতে পারেননি সাকিব। শেষ অবধি ৮৫তম বলে এসে সেঞ্চুরি পেয়ে যান কিষাণ। ১৩ চারের সঙ্গে দুটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন তিনি।

নিজের প্রথম সেঞ্চুরিকে এরপর কিষাণ নিয়ে যেতে থাকেন ডাবল সেঞ্চুরির দিকে। সম্ভাব্য প্রায় সবই করেছেন এই ব্যাটার, গড়েছেন অনেক রেকর্ডও। ১২৬ বলে পাওয়া তার ডাবল সেঞ্চুরি ইতিহাসের সবচেয়ে দ্রুততম। ক্রিস গেইলের ১৩৮ বলকে ছাড়িয়ে গেছেন। সবচেয়ে কম বয়সী ডাবল সেঞ্চুরিয়ানও এখন তিনি।

মোস্তাফিজুর রহমানের বল পয়েন্টে ঠেলে দৌড়ে এক রান নিয়ে ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন কিষাণ। এরপর তিনি দৌড়ে ছুটে যান ড্রেসিং রুমের দিকে। এর আগে সেঞ্চুরি করেও গিয়েছিলেন সেদিকে। সিরিজের আগের দু ম্যাচে বেঞ্চে বসে থাকা এই ক্রিকেটার সুযোগ পেয়ে নিজেকে মেলে ধরতে পারার আনন্দ তার উদযাপনে ছিল স্পষ্ট।

অবশেষে ঈষাণের অবিশ্বাস্য ইনিংসটির সমাপ্তি হয় তাসকিন আহমেদের বলে। লিটন দাসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ২৪ চার ও ১০ ছক্কায় ১৩১ বলে ২১০ রান করা কিষাণ। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ব্যাটার হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি। ভিরাট কোহলি সঙ্গে তার ২৯০ রানের জুটি যেকোনো উইকেটে যেকোনো দলের হয়েই বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বোচ্চ।

কিষাণের আলোতে ঢাকা পড়ে যাওয়া ভিরাট কোহলিও হাঁকান সেঞ্চুরি। লিটনের কাছ থেকে পাওয়া সুযোগ কাজে লাগান দারুণভাবে। ১১ চার ও ২ ছক্কায় ৯১ বলে ১১৩ রানের ইনিংসটি থামে সাকিব আল হাসানের বলে। এর বাইরে ২৭ বলে ওয়াশিংটন সুন্দর ৩৭ ও ১৭ বলে ২০ রান করেন অক্ষর প্যাটেল।

৮ উইকেট হারিয়ে ৪০৯ রানে থামে ভারতের ইনিংস। বাংলাদেশের পক্ষে তাসকিন আহমেদ ৯ ওভারে ৮৯ রান দিয়ে নেন দুই উইকেট। ১০ ওভারে ৭৬ রান দিয়ে সাকিব ও ৯ ওভারে ৮০ রান দিয়ে ২ উইকেট করে নেন এবাদত হোসেন। এছাড়া ১০ ওভারে ৬৬ রান খরচ করে ১ উইকেট পান মোস্তাফিজও।

%d bloggers like this: