ArabicBengaliEnglishHindi

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ 


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৫, ২০২২, ৬:৩৪ অপরাহ্ণ / ৫০
প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ 

দৈনিক আইনের চোখ পত্রিকায় গত ২৩-০৯-২০২২ ইং রোজ শুক্রবার,প্রকাশিত ভিত্তিহীন ,মিথ্যা,বানোয়াট,ষড়যন্ত্রূমূলক কাল্পনিক সংবাদ আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে।বিশপ ডঃ জন হীরা গংদের গাত্রদাহ কথাটি কোন ভাবেই গ্রহন যোগ্য নয়। সত্য সবসময়ই সত্য,মিথ্যা সব সময়ই দূর্বলতা বহন করে।কোন প্রতিষ্ঠান কে কাহারো ব্যক্তিগত মনে করার কোন অবকাশ নেই। প্রথ্যেকেই তার জবাবদিহিতা কোথা ওনা কোথাও করতে হয়।বিশপ জন হীরা ও ১৯৭৮ খ্রীঃ হইতে সেইভাবেই বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হয়ে ২ জন আমেরিকান মিশনারী সঙ্গে নিয়ে দীর্ঘ ২৩ বৎসর যাবৎ একই সাথে কাজ করে আসছেন,এমন কি তাহারা একই ছাদের নিচে একই টেবিলে খেয়ে কাজ করে আসছেন। নিয়মনীতি না মানলে কোন ব্যক্তিই কোন প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে পারেন না।

বলা হয়েছে আত্নপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয় নি। অনেক ষ্টাফ আছেন যারা নিজেরা চুরি ,অপকর্ম, প্রতিষ্ঠানের মালামাল আত্নসাৎ ও বিবাদ সৃষ্টি করায় বাধ্য হয়ে দেশী বিদেশী কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে তাহাদিগকে অব্যহতি দিতে বাধ্য হন। আরও উল্লেখ্য থাকে যে, বাশপ জন হীরা ও দেশী বিদেশী মিশনারীগণ যেহেতু সেবামূলক কাজ করেন সেহেতু তাদের কে বারবার ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখেছেন ও সংশোধনের সুযোগ দান করেছেন । তা বলার কোন অবকাশ রাখে না। বিদেশ থেকে কেই কখনো ভূয়া অর্থ সংগ্রহ করতে পারেন না। আর ১৯৭৮ খ্রীঃ হইতে এখন অবধি ভূয়া অর্থ দিয়ে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন কিভাবে এটা আমার বোধগম্য নয়।বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠা পরিচালক বিশপ জন হীরা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নিয়মনীতি মেনেই কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

খাবার কিনে খাওয়ার অর্থ প্রসঙ্গে বলতে চাইবিশপ জন হীরা মাঝে মধ্যে আপমেরিকার ১৫/২০ টি অঙ্গরাজ্যে গিয়ে সেখানের বিভিন্ন চার্চে খ্রীষ্ট ধর্ম প্রচার করে যে উপহার পান তাতে কি তার দরিদ্র কোন প্রশ্ন আসে ? ডঃ ডিগ্রী াাছে কি নাই প্রয়োজন হলে যথা সময়ে দেখানো হবে কিন্তু পর্দার আড়ালে থেকে একজন ধর্মযাজক এর বিরুদ্ধে অযথা কুৎসিৎ সম্মান হানিকর বক্তব্য প্রচার করে যাচ্ছে,যিনি দুই দুই বার গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যান মন্ত্রানালয় পক্ষ থেকে ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এবং উত্তম সমাজ সেবার জন্য মাদার তেরেসা গোল্ড ক্রেষ্ট ও তাকে প্রদান করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে সাবেক প্রধান বিচারপতি ও তত্ত্ববধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা জনাব মোঃ হাবিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।নামে বেনামে জমি ক্রয় তার সঠিক প্রমান বিশপ জন হীরা তো যাকে তাকে দিগবেন না। যদি এরক কোন বিষয় থাকে তাহলে তার সত্যতা প্রমান করুক অযথা সম্মানিত ব্যক্তির মান সম্মান নিয়ে তামাসা করা কতটুকু যুক্তি সংগত? পরিশেষে বলতে চাই কে বা কাহারা সেবা মূলক ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও সম্মানিত ব্যক্তি সমন্ধে স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য কুৎসা রটনা করছেন,তা আমাদের বোধগম্য নয়। অঅপনাদের কে বলব আপনারা এহন অপকর্ম থেকে বিরত ও সংযত হউন নতুবা নাম প্রকাশ নিজেকে নিজেরা সামনে আনুন। গত ২৩-০৯-২০২২ ইং রোজ শুক্রবারের মিথ্যা,বানোয়াট,ষড়যত্ন্রমূলক মানহানিকর মানহানিকর প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।পরবর্তিতে আমাদের মিশন ও সম্মানিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মিথ্য বানোয়াট সংবাদ প্রচার করিলে আমরা দেশের প্রচলিত আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য থাকিব। কালভেরী এ্যাপোষ্টলিক চার্চের পক্ষে পাষ্টর বিধান বৈরাগী।

%d bloggers like this: