সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন না করার অভিযোগ উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার  বিরুদ্ধে


প্রকাশের সময় : মে ৮, ২০২৩, ৭:০৯ অপরাহ্ণ / ১২৯
সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন না করার অভিযোগ উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার  বিরুদ্ধে
বিশেষ প্রতিনিধিঃ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা(বিএস) মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কৃষকদের সমস্যা সমাধান দেওয়া, ভালো ফলনের লক্ষ্য কৃষকদের সঠিক পরার্মশ দিবে এটা স্বাভাবিক ৷ তবে এক ইউপিতে দুই জন বিএস দায়িত্বে থাকা সও্বেও তাদের চেনেনা কেউ, মাঠ পর্যায়ে দেখেননি কোনো কৃষক-এমন অভিযোগ করেছেন পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার বলরামপুর ইউনিয়েনের কৃষকেরা। এই ইউপির দায়িত্বে আছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা (বিএস)ফজলে আনোয়ার ও সাবিনা ইয়াসমিন ৷ জানা যায়, বিএস এর কাজ কৃষকের ক্ষেতের সমস্যা চিহ্নিত করা এবং সম্ভাব্য সমাধান খুজেঁ পেতে সাহায্য,স্থানীয় চাহিদার ভিত্তিতে ব্লকে সম্প্রসারণ কর্মকান্ড বাস্তবায়ন,কৃষকের জন্য উপযুক্ত সম্প্রসারণ র্কমকান্ড পরিকল্পনার লক্ষে উপজেলা পরিকল্পনা র্কমশালাকে পরার্মশ সহায়তা প্রদান করা, তথ্য সংগ্রহে কৃষকদের সহায়তা দেওয়া । অন্যান্য সম্প্রসারণ সহযোগী সংস্থা থেকে কৃষকদের সহায়তা প্রদান করা, ব্লকের তথ্য সংগ্রহ ও রেকর্ড করা,বিভিন্ন ফসলের শস্যর্কতন ও উৎপাদতি ফসলের ব্যবস্থা পরিসংখ্যান প্রনয়ণ করা ৷ এদিকে বটতলী এলাকার কৃষক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি দীর্ঘদিন থেকে কৃষি করি কিন্তু বিএস এর দেখা পাইনি কখনো। যারা সরকারী প্রণোদনা পায় শুধু তারাই বিএসকে চেনে । ৩/৪ বিঘা জমিতে মরিচ, ভুট্টা, বেগুন করা কৃষক হাবিবুর রহমান বলেন, অনেকদিন ধরে কৃষিকাজ করি, সরকারী প্রণোদনা তো দূরের কথা বিএসের পরার্মশ পাইনি এবং মাঠে কখনো দেখিনি৷ কৃষক তহিদুর রহমান বলেন, বিএসকে চিনি। কিন্তু কখনো পরার্মশ দিতে আসেনা/পাইনি।  তিনি দুইজন বিএস এর কথা শুনে বলেন, আমিতো জানতাম একজন(আনোয়ার)বিএস আছে, দুইজন হলো কবে থেকে ? বলরামপুরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাবিনা ইয়াসমিনকে ফোন দেওয়া হলে, তিনি ভুল নম্বর বলে ফোন কেটে দেন৷ বিএস ফজলে আনোয়ার বলেন, সবার বাসা/মাঠে যাওয়া সম্ভব হয় না ৷ এখন ডিজিটাল যুগ মুঠোফোনে কল করলেই তো পরামর্শ দিই। এবিষয়ে জানতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুরজাহান খাতুনকে ফোন দেওয়া হলে তিনি রিসিভ করনেনি।