ArabicBengaliEnglishHindi

শরীয়তপুরে পানের দাম বেড়ে চারগুণ, চাষির মুখে হাসি


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১৭, ২০২২, ৬:৩৫ অপরাহ্ণ / ১৬
শরীয়তপুরে পানের দাম বেড়ে চারগুণ, চাষির মুখে হাসি

 জেলা প্রতিনিধি:-  শরীয়তপুরে পাঁচ মাস আগেও যেখানে এক বিড়া (৮০টি) পান বিক্রি হতো ৫০-৬০ টাকায়, তার দাম বেড়ে এখন হয়েছে ২০০ টাকা। দাম বাড়ায় পানচাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শরীয়তপুরে পাঁচ উপজেলায় প্রায় দেড় হাজার পানচাষি রয়েছেন। তারা ট্রাকে করে পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে সরাসরি ঢাকা শ্যামবাজারে পান বিক্রি করেন।

সদর উপজেলার স্বর্ণঘোষ এলাকার পানচাষি জয়নাল উদ্দিন ব্যাপারী ও শান্ত দাস জানান, পাঁচ মাস আগেও তারা ভালো দাম পাননি। তবে একমাস ধরে বাজারে পানের দাম ঊর্ধ্বমুখী। মূলত শীত আসার পর থেকে পানের দাম বেড়েছে।

ওই এলাকার ফারুক শিকদার জানান, তিনি ২০ শতক জমিতে পানচাষ করেছেন। সবমিলিয়ে প্রায় দেড় লাখ টাকার মতো খরচ হয়েছে। দাম এরকম চড়া থাকলে ভালো মুনাফার আশা করছেন তিনি।

ফারুক শিকদার বলেন, ‘গত সপ্তাহে ঢাকা শ্যামবাজার ২০৯ বিড়া পান বিক্রি করেছি। প্রতি বিড়া ১৯০ থেকে ২০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।’

পানচাষি ইলিয়াস মগদুম জানান, পানচাষ করতে প্রয়োজন হয় পাটখড়ি, বাঁশের চটি, বন (উলু), সুতা, সার, কীটনাশক, ওষুধ, সরিষার খৈল ও মাটি। এতে বছরে প্রতি শতকে খরচ হয় প্রায় সাড়ে সাত হাজার টাকা। বর্তমানে দাম ভালো হওয়ায় পান চাষ লাভজনক।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, শরীয়তপুরে এবছর ৪৮৭ হেক্টর জমিতে পানের আবাদ করা হয়েছে। এরমধ্যে গোঁসাইরহাটে ৩৫৬, ডামুড্যায় ১১, ভেদরগঞ্জে ৪৫, সদরে ৩৪ ও নড়িয়া উপজেলায় ৪১ হেক্টর জমিতে পানের আবাদ করা হয়েছে। মিষ্টি, সাঁচি, চালতা ফুলি, গোটা, বাংলা ও গাছ পানের চাষ করা হয় এ জেলায়।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের (খামার বাড়ি) উপ-পরিচালক মতলুবর রহমান বলেন, আগে বিদেশের বাজারে দেশীয় পানের অনেক চাহিদা ছিল। কিন্তু বর্তমানে চাহিদা কম। তবে শীতে শরীয়তপুর ও ঢাকায় পানের দাম বেড়েছে। পানচাষিরা ভালো দাম পেয়ে খুশি।

%d bloggers like this: