বিএম কনটেইনার ডিপোর আসামি করা হলো যাঁদের


প্রকাশের সময় : জুন ৮, ২০২২, ২:২০ অপরাহ্ণ / ৪৩৯
বিএম কনটেইনার ডিপোর আসামি করা হলো যাঁদের

আগুন নেভাতে বিশেষ ধরনের পোশাক পরে তৈরি হচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা

আগুন নেভাতে বিশেষ ধরনের পোশাক পরে তৈরি হচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা
ছবি: জুয়েল শীল

নেদারল্যান্ডস ও বাংলাদেশের দুটি প্রতিষ্ঠানের যৌথ বিনিয়োগে বিএম কনটেইনার ডিপো গড়ে ওঠে। এখানে বাংলাদেশের স্মার্ট গ্রুপের অংশীদারি রয়েছে। যে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড নামের রাসায়নিক পদার্থ থেকে বিস্ফোরণ ঘটেছে, সেটিও স্মার্ট গ্রুপের আরেক প্রতিষ্ঠান আল রাজী কেমিক্যাল কমপ্লেক্স লিমিটেডের। পোশাক, এলপিজি ও খাদ্যপণ্য খাতে বিনিয়োগ রয়েছে স্মার্ট গ্রুপের।

গত শনিবার রাতে বিস্ফোরণে ৪৪ জন নিহত ও দুই শতাধিক মানুষ আহত হন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের নয়জন সদস্য রয়েছেন, যাঁরা আগুনে নেভানোর চেষ্টার মধ্যে রাসায়নিক ভর্তি কনটেইনারে বিস্ফোরণে প্রাণ হারিয়েছেন। ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কনটেইনারে রাসায়নিক থাকার কথা মালিকপক্ষ তাঁদের জানায়নি। সে কারণেই বিস্ফোরণে এত বেশি মানুষ হতাহত হয়েছে।

মরদেহ উদ্ধার করে এক জায়গায় নিয়ে এসে দাঁড়ান স্বেচ্ছাসেবীরা

মরদেহ উদ্ধার করে এক জায়গায় নিয়ে এসে দাঁড়ান স্বেচ্ছাসেবীরা
ছবি: জুয়েল শীল

এরপরেও মালিককে কেন আসামি করা হয়নি, সে প্রশ্নে চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক আজ বুধবার দুপুরে আইনের চোখকে বলেন, এখন ডিপোর কর্মকর্তাদের আসামি করা হয়েছে। তদন্তে মালিকসহ যাঁদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে, তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

তবে ডিপোর মালিকদের একজন মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের নেতা হওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া নিয়ে সংশয়ের কথা আগেই বলে আসছেন বিএনপির নেতারা।
এ বিষয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) চট্টগ্রামের সম্পাদক আখতার কবির চৌধুরী আজ আইনের চোখকে বলেন, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা মালিকের বাইরে কিছু করতে পারেন না। সীতাকুণ্ডের ঘটনায় মালিকপক্ষ কোনো অবস্থাতেই নিজেদের দায় এড়াতে পারেন না।

আখতার কবির চৌধুরী বলেন, ‘যাঁর হাত যত লম্বা, তাঁর পার পাওয়ার সুযোগও বেশি। এ দেশে এটি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবনের কোনো মূল্য নেই। যার কারণে এ ধরনের ঘটনা বারবার ঘটছে। পার পেয়ে যাচ্ছে মূল অপরাধীরা।