পলাশে ফোনে ওসি পরিচয়ে টাকা দাবি প্রতারকের, উঠিয়ে নেয়ার হুমকি


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১০, ২০২২, ৮:৪২ অপরাহ্ণ / ১২১
পলাশে ফোনে ওসি পরিচয়ে টাকা দাবি প্রতারকের, উঠিয়ে নেয়ার হুমকি
নরসিংদী প্রতিনিধি:-  নরসিংদীর পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছের পরিচয় দিয়ে অজ্ঞাত এক প্রতারক দুই জনের কাছ থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিকাশে ৩৫ হাজার টাকা পাঠানোর দাবী করেছে। রোববার বিকেলে পলাশ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের প্রশিক্ষক সালমা সরকার ও একই অফিসের মুহাম্মদ আসাদুজ্জামানের মুঠোফোনে প্রতারণার ফাঁদ পেতে ওসির নাম বলে এই টাকা দাবী করা হয়।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে পলাশ উপজেলা মহিলা বিযয়ক কর্মকর্তা রেহানা পারভীন জানান, ঘটনাটি তারা আমাকে জানালে তাদের থানায় জিডি করার পরামর্শ দেই। এ ঘটনায় রোববার রাতে পলাশ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান ও সোমবার দুপুরে প্রশিক্ষক সালমা সরকার পলাশ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।
সালমা সরকার জানান, রোববার বিকেলে অপরিচিত এক নাম্বার থেকে (০১৩২৪০২৪৪৬১) তার মুঠোফোনে পলাশ থানার ওসি পরিচয়ে একজন ফোন করেন। এসময় তিনি ফোনে বলেন, ভুল করে আপনার নাম্বারে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা পাঠিয়েছে। এই টাকা আপনাকে নগদের মাধ্যমে ফেরত পাঠাতে হবে। না পাঠালে বাসা থেকে বের হলে পুলিশ ফোর্স দিয়ে তুলে নিবে। এ সময় সময় ফোনে সালমা সরকারের চাকরির বিভিন্ন দিক তুলে ধরে হুমকি ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন ওই কথিত ওসি।
সালমা সরকার আরও বলেন, এ সময় বিকাশে টাকা আসছে কী না যাচাই না করে, টাকা না পাঠাতে চাইলে তিনি আমাকে মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়াসহ বাসা থেকে তুলে নিয়ে আসার হুমকি দেন। এ ঘটনার পর আমি পলাশ থানার ওসির মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করে তাকে বিস্তারিত জানিয়ে সোমবার দুপুরে থানায় জিডি করি।
এদিকে একই দিন বিকেলে একই অফিসের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর মুহাম্মদ আসাদুজ্জামানকেও পলাশ থানার ওসি পরিচয়ে মুঠোফোনে একই নাম্বার থেকে কল করে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা পাঠাতে বলা হয়। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকেও ফোর্স দিয়ে বাসা থেকে তুলে নিয়ে আসবে বলে হুমকি এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করা হয়। পরে রাতেই পলাশ থানায় জিডি করেন ভুক্তভোগী।
পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, অভিযোগকারীদের যে নাম্বার থেকে ফোন করে প্রতারক টাকা পাঠাতে বলেছে, সেই নাম্বারটি রাঙ্গামাটিতে ব্যবহার করা হচ্ছে। আমরা তাকে আটক করার চেষ্টা করছি।