নড়াইলের নড়াগাতীতে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুরুতর আহত ৫


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২, ৯:০৭ অপরাহ্ণ / ১৪৬
নড়াইলের নড়াগাতীতে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুরুতর আহত ৫
বিশেষ প্রতিনিধি: মামুন মোল্যা  নড়াইল জেলার নড়াগাতী থানার চোরখালী গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে  সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।এ ঘটনায়  উভয় পক্ষের পাঁচজন আহত হয়েছে বলে জানা যায়।
২৩ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) দুপুর ১ ঘটিকায় এ ঘটনা ঘটে।এ সময় আহতদের স্থাণীয়  কালিয়া উপজেলা স্বাস্থকমপ্লেক্সে ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  ভর্তি করা হয়েছে। এদরে মধ্যে মন্টু বিশ্বাসের বড় ছেলে শাকিল ও আঃ রাজ্জাক বিশ্বাসের ছেলে আব্দুর রহমান বিশ্বাসের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় খুলনা মেডিকেলে স্থানন্তর করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকদিন আগে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এনায়েত খানের ছেলে সুমন খানের সাথে মসজিদে জিলাপী ভাগাভাগি নিয়ে মন্টু বিশ্বাসের ছেলে শান্তর সাথে কথা কাটাকাটি হলে স্থাণীয়রা বিষয়টি মিমাংসা করে দেন।
গতকাল শান্তর ভাই শাকিল বিশ্বাস তার মামা এনামুলকে নিয়ে নদীতে গোসল করতে গেলে সুমনের সাথে ধাক্কা লাগলে এক পর্যায়ে কথা কাটাকাটি মধ্যে দিয়ে সুমনকে কিলগুসি মারে।পরবর্তীতে সুমন বাড়ী এসে তার ৭/৮ জন সহযোগীসহ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে এনামুলের বাড়ী এসে আকস্মিক হামলা চালিয়ে  ঘরের জানালা ভাংচুর করে।  এ সময় দুই পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।এ  সংঘর্ষে শাকিল ও আবদুর রহমানকে মারাত্মক ভাবে জখম হয় ।এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ৫ জন আহত হয়েছে।
আহত আব্দুর রহমানের মা জানান,আমার ছেলে গুরুত্বর আহত।সে এখন খুলনা সিটি হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি আছে। এ ঘটনা সুষ্ঠ বিচার দাবী করেছেন তিনি।
এ ঘটনায় প্রতিপক্ষ সুমনের মা জানান, আমার ছেলে ও দুই পোতাকে সাথে নিয়ে নদীতে গোসল করতে গিয়েছিল । তখন রাজ্জাক বিশ্বাসের ছেলে আব্দুর রহমান ও মন্টু বিশ্বাসের ছেলে শাকিলসহ কয়েক জন মিলে আমার ছেলে ও পুতাদের মারপিট করে। পরে দুই পক্ষের মাঝে মারামারি হয় ঐ সময় আমার  দেবর ঠেকাইতে গিয়ে মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হয়েছেন এবং আমার ছেলে সুমন খান আহত হয়ে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছে।
এ বিষয়ে নড়াগাতী থানার অফিসার ইনচার্জ সুকান্ত সাহা এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাস্থাল পুলিশ পরিদর্শন করেছে। অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।