ArabicBengaliEnglishHindi

দ্রব্য মুল্য উর্ধ্বগতিতে দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়ার আশঙ্কা


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ৫, ২০২২, ১:১৩ অপরাহ্ণ / ৪১
দ্রব্য মুল্য উর্ধ্বগতিতে দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়ার আশঙ্কা

রাসেদুল ইসলাম

সারা বিশ্বের মধ্যে করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে বিশ্বে অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙে পড়েছে। এর ফলে সারা বিশ্বে লক্ষ লক্ষ মানুষ তাদের কর্ম হারিয়ে বেকার অবস্থায় রয়েছে। এই করোনার রেশ কাটিয়ে উঠার আগেই নতুন করে শুরু হলো রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে সর্বনাশা যুদ্ধ। এর ফলে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্ব আজ তছনছ হয়ে যাচ্ছে । নিদারুণ হতাশা , অভাব আর অজানা আতংকে স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ দিশেহারা হয়ে মৃত্যুর দারপ্রান্তে আজ পৌঁছে গেছে । এই ভয়ংকর ও মানবতাবিরোধী যুদ্ধের কোন শেষও দেখা যাচ্ছে না। তাদের জেদ এবং ক্ষমতার কাছে জিম্মি হয়ে আছে গোটা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ।
এই যুদ্ধের ফলে গোটা বিশ্বে আজ খাদ‍্য, জ্বালানি তেল ও গ‍্যাস সহ সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম বেড়ে আকাশচুম্বী। এমন কি এই যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অনেক দেশ খাদ‍্যের অভাবে নাজেহাল অবস্থায় দিন যাপন করছে,আমদানি রপ্তানির উপর এক দেশ আরেক দেশ কে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে যা বিশ্বের ছোট দেশগুলোর জন্য বড় হুমকি বা বিপদজনক।এই যুদ্ধের আচঁ খুব কঠিন ভাবে বাংলাদেশেও পড়েছে। বিশ্ববাজারে খাদ‍্যশস‍্য সরবরাহের ক্ষেত্রে ইউক্রেন এবং রাশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বিশ্ববাজারে ইউক্রেন যেসব শস‍্য বড় আকারে রপ্তানি করে থাকেন তার মধ্যে রয়েছে – সানফ্লাওয়ার অয়েল, ভূট্টা, গম এবং বার্লি।
অন‍্যদিকে একই শস‍্য বিশ্ববাজারে বড় আকারে সরবরাহ করছে রাশিয়া।
কিন্তু এই যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে খাদ‍্য শস‍্যের বাজার অস্থির হয়ে উঠেছে। দাম প্রতিদিন বেড়েই চলছে। দ্রব‍‍্যমূল‍্যের ঊর্ধ্বগতিতে বাংলাদেশের মতো অন‍্যান‍্য দেশগুলো আজ দিশেহারা।
বাংলাদেশে গম আমদানিতেও পড়েছে প্রভাব।
বাংলাদেশের মানুষ ক‍্যালোরির জন্য ভাতের উপর নির্ভরশীল। তবে আটা-ময়দার উপরও ধীরে ধীরে নির্ভরশীলতা বাড়ছে। আর এই আটা ময়দা আসে গম থেকে।
ইন্টারনেশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট এর গবেষণার প্রবন্ধে বলা হয়েছে গত ২০ বছরে বাংলাদেশে গমের চাহিদা প্রায় দ্বিগুণ।
বাংলাদেশ তার চাহিদার ৮০ শতাংশ গম আমদানি করে রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে।
কিন্তু সেই গম সরবরাহে বাধাগ্রস্ত হওয়ায় গমের দাম বেড়ে গেছে। ফলে আটা-ময়দার দাম বেড়েছে। সেই সাথে আটা-ময়দা দিয়ে তৈরি খাদ‍্যের দামও বেড়েছে।
এভাবে যদি চলতে থাকে হয়তো আগামীতে বিশ্বে এক মহা খাদ‍্য সংকট দেখা দিতে পারে।
এমতাবস্থায়,রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন,আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো-বাইডেন , ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি সহ জাতিসংঘ , পশ্চিমা দেশ সমূহ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের নীতি নির্ধারকদের নিকট এই সর্বগ্রাসী যুদ্ধ আর কাল বিলম্ব না করে এই মুহূর্তে বন্ধ করে ভয়ার্ত বিশ্বে শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য আমি জোর দাবী জানাচ্ছি। ক্ষমতার দম্ভ ও জেদের নিকট বিশ্ব মানবতা ও সভ্যতা আজ বড় অসহায় ও বিপন্ন । তাই এখনি এই যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে, তা না হলে বিশ্বের ক্ষুধার্ত লক্ষ লক্ষ মানুষ না খেয়ে মারা যাবে এবং ইতিহাসে আপনারা হিটলার ও মুসোলিনির মত কলংকিত হয়ে থাকবেন ।
সেই সাথে এই মানবতা বিধ্বংসী যুদ্ধ এখনি বন্ধ করার জন্য বিশ্বের সকল দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকার প্রধানদেরকেও সোচ্চার হওয়ার হতে হবে।