দুই প্রকল্পের ব্যয় বাড়ছে ২২ কোটি টাকা


প্রকাশের সময় : মে ২৪, ২০২৩, ৭:২৪ অপরাহ্ণ / ৬৫
দুই প্রকল্পের ব্যয় বাড়ছে ২২ কোটি টাকা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক  :- স্থানীয় সরকার বিভাগের একটি এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একটি প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। নতুন করে এই দুই প্রকল্পের ব্যয় বাড়ছে ২২ কোটি টাকা।

এর মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীন ঢাকা ওয়াসা কর্তৃক ‘ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট’ প্রকল্পে ১২ কোটি ৮৬ লাখ ৪৬ হাজার ৪২৫ টাকা ব্যয় বাড়ছে। এছাড়া পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক ‘দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় সমন্বিত পানিসম্পদ পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনা- (২য় পর্যায়)’ প্রকল্পের জন্য ৯ কোটি ৫৫ লাখ ৮৪ হাজার ৮৭৫ টাকা ব্যয় বাড়ানো হচ্ছে।

বুধবার (২৪ মে) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় এ ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। এদিন ভূমির ডিজিটাল রেকর্ড সংক্রান্ত একটি প্রকল্পের জন্য ২ কোটি ৮৮ লাখ ৫৩ হাজার মার্কিন ডলার ব্যয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান সাংবাদিকদের বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীন ঢাকা ওয়াসা কর্তৃক ‘ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট’ প্রকল্পের প্যাকেজ নং-০৩.৫ এর আওতায় পরামর্শক প্রতিষ্ঠানগুলোর কাজের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিয়োজিত দোহা, স্টাপ, দেভ কন, ডিডিসি এবং আইডব্লইউএমের মেয়াদ চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে। এ জন্য ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ১২ কোটি ৮৬ লাখ ৪৬ হাজার ৪২৫ টাকা ব্যয় বৃদ্ধির ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক প্রস্তাবর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক ‘দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় সমন্বিত পানিসম্পদ পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনা- (২য় পর্যায়)’ প্রকল্পে নিয়োজিত পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের কাজের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। এ কাজে নিয়োজিত নেদারল্যান্ডের হাসকনিং ডিএইচভি বিভি এবং বাংলাদেশের দেব কনসালটেন্টের মেয়াদ চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে। এ জন্য ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ৯ কোটি ৫৫ লাখ ৮৪ হাজার ৮৭৫ টাকা ব্যয় বৃদ্ধির ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

এছাড়া ভূমি মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে ভূমি রেকর্ড ও জরিপের আওতায় ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির এক প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২ কোটি ৮৮ লাখ ৫৩ হাজার মার্কিন ডলার ব্যয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।